No icon

করোনা ভ্যাকসিন নপংসুক করে দিতে পারে- সপা এমএলসি: ভিত্তিহীন বলল ডিসিজিআই

ভারতের উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও সমাজবাদী পার্টির (সপা) জাতীয় সভাপতি অখিলেশ যাদব ভ্যাকসিন না দেওয়ার বিবৃতি দেওয়ার পরে এবার তার দলের এক এমএলসি আশুতোষ সিনহা বলেছেন, কোভিড ১৯-এর ভ্যাকসিনে এমন কিছু আছে যা মানুষের ক্ষতি করতে পারে।

সপা নেতা আশুতোষ সিনহা বলেন, আগামীতে লোকেরা বলবে যে এই ভ্যাকসিন তাদের হত্যা করার জন্য বা জনসংখ্যা হ্রাস করার জন্য দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, যেকোনও কিছু ঘটতে পারে, এমনও হতে পারে যে ওই ভ্যাকসিন দেওয়ার পরে লোকেরা নপংসুক হয়ে যেতে পারে।

ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই) ভি জে সোমানি অবশ্য, এ ধরণের দাবি একেবারেই ভিত্তিহীন বলে মন্তব্য করেছেন।  

এরআগে, গতকাল (শনিবার) ‘সপা’ সভাপতি অখিলেশ যাদব বলেছিলেন, 'ওই টিকাটি বিজেপির। আমি তা গ্রহণ করব না, কারণ আমি বিজেপিকে বিশ্বাস করি না।' অখিলেশ বিজেপিকে তীব্র কটাক্ষ করে জিজ্ঞাসা করেন, ‘যে সরকার করতালি দিয়েছিল এবং থালা বাজিয়েছিল তারা টিকা দেওয়ার জন্য এত বড় চেইন করছে কেন? কেবল তালি ও থালা বাজিয়ে করোনা দূর করে দিক না। আমি এখনই করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন গ্রহণ করব না। আমি কীভাবে বিজেপির ভ্যাকসিনকে বিশ্বাস করতে পারি? যখন আমাদের সরকার গঠন হবে, সবাই বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাবে। আমরা বিজেপির ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারি না।'

কেপি মৌর্য

বিজেপি নেতা ও উত্তর প্রদেশের উপ-মুখ্যমন্ত্রী কেপি মৌর্য কটাক্ষ করে বলেন, ‘অখিলেশ যাদব ভ্যাকসিনে বিশ্বাস করেন না। আর উত্তরপ্রদেশের মানুষ অখিলেশকে বিশ্বাস করে না। এই টিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে উনি দেশের ডাক্তার ও বিজ্ঞানীদেরই অপমান করলেন।’  এ জন্য সমাজবাদী পার্টির সভাপতির ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও কেপি মৌর্য মন্তব্য করেন।

এদিকে, কোভ্যাক্সিন’ ও কোভিশিল্ড’ টিকার অনুমোদন দিয়েছে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া। গতকাল শনিবার থেকে শুরু হয়েছে ট্রায়াল রান। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আজ (রোববার) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক বার্তায় বলেন, ‘অনুমোদন পাওয়া দুটি টিকাই ভারতে তৈরি। এ জন্য প্রত্যেক ভারতবাসীর গর্ববোধ করা উচিত। আত্মনির্ভর ভারতের স্বপ্নের দিকে এগিয়ে যেতে আমাদের বিজ্ঞানীরা যে কতটা আগ্রহী, এটাই তার প্রমাণ।’ কোভিড-মুক্ত দেশের লক্ষ্যে ওই অনুমোদন একটি ‘টার্নিং পয়েন্ট’ বলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মন্তব্য করেছে

Comment As:

Comment (0)