No icon

২০১৪ সালে পাকিস্তান স্কুল হামলায় ভারত জড়িত ছিল, দাবি পাকিস্তানী কর্মকর্তার

আমার দেশ ডেস্ক

মঙ্গলবার পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় এক কর্মকর্তা বলেছেন যে ২০১৪ সালের পাকিস্তান সামরিক বাহিনী চালিত একটি স্কুলে মারাত্মক সন্ত্রাসী হামলায় ভারত জড়িত ছিল, যেখানে ৮ থেকে ১৮ বছর বয়সী ১৪৪ শিশু মারা গিয়েছিল।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা ময়ীদ ইউসুফ দাবি করেছেন যে, পেশাওয়ারের আর্মি পাবলিক স্কুলে আক্রমণের পাশাপাশি অন্যান্য কিছু সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে নয়া দিল্লির হাত ছিল, যেটার ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করতে ইসলামাবাদ বেশ কয়েক বছর ব্যয় করেছে।

যদিও পাকিস্তান ও ভারত বার বার একে অপরকে সন্ত্রাসবাদী ও জঙ্গিদের সমর্থন করার অভিযোগ তুলে থাকে, ইউসুফ দ্য ওয়্যার পত্রিকার ভারতীয় সাংবাদিক করণ থাপারকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে নতুন এসব তথ্য প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, “দিবালোকে যখন শিশুদের হত্যা করা হচ্ছিলো তখন আফগানিস্তানের জালালাবাদ থেকে হামলার মূল পরিকল্পনাকারী মালিক ফরিদুন ভারতীয় কনস্যুলেটে অবস্থিত মধ্যস্থতাকারীদের সংস্পর্শে ছিলেন।”

“একই ব্যক্তি ২০১৭ সালে ভারতের নয়াদিল্লিতে বসে চিকিৎসা লাভ করছিলেন।”

ইউসুফ বলেন যে পাকিস্তান এখন পর্যন্ত আটটি ফোন কলের রেকর্ড পেয়েছে, যার মধ্যে ভারতীয় মধ্যস্থতাকারীদের দ্বারা হামলা পরিচালানোর জন্য ব্যবহৃত নম্বরগুলি রয়েছে।

২০০৮ সালের মুম্বাই বোমা হামলা সম্পর্কে থাপ্পরের প্রশ্নের জবাবে এই তথ্য দেন ইউসুফ। সেই ঘটনায় ১৬৬ জন মারা গিয়েছিল এবং এর জন্য নয়াদিল্লি ইসলামাবাদকে দোষারোপ করেছিলো।

প্রাক্তন কূটনীতিক এবং ভারতে পাকিস্তানের সাবেক রাষ্ট্রদূত আবদুল বাসিত বলেন যে ইসলামাবাদ প্রথম দিন থেকেই ২০১৪ সালের স্কুল হামলায় নয়াদিল্লির ভূমিকা নিয়ে সন্দেহ করেছিল।

তিনি বলেন যে স্কুল হামলার পরপরই পাকিস্তানের তৎকালীন মিলিটারি নেতৃত্ব তেহরিক তালিবান পাকিস্তানের (টিটিপি) সঙ্গে ভারতের যোগসূত্র সম্পর্কে তথ্য নিয়ে আফগানিস্তান ভ্রমণ করেছিল।

উল্লেখ্য যে পাকিস্তানে অবস্থিত টিটিপি আফগান তালেবানদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা একটি জঙ্গি সংগঠন যারা গত এক দশকে বহু বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তাদের লক্ষ্য করে হত্যা করেছে।

Comment As:

Comment (0)