No icon

নিউজিল্যান্ডের জাতীয় নির্বাচনে জাসিন্দা আর্ডার্ন ভূমিধস বিজয়

আমার দেশ ডেস্ক

শনিবার নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আর্ডার্ন দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে এই জয়টি ভোটারদের পক্ষ থেকে করোনাভাইরাস এবং ইসলাম-বিদ্বেষী আক্রমণের মোকাবেলায় আর্ডারনের নেতৃত্বের জন্য পুরষ্কার।

বেশিরভাগ ভোট গণনার পরে দেখা যায় যে আর্ডার্নের লেবার পার্টি তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ ন্যাশনাল পার্টির তুলনায় প্রায় ২ গুণ ভোট পেয়ে জয়লাভ করে – কনজারভেটিভ ন্যাশনাল পার্টির ২৭ শতাংশ ভোটের তুলনায় ৪৯ শতাংশ ভোট পেয়ে লেবার পার্টি বিজয়ী হয়।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত লেবার পার্টি দেশটির ১২০ টি আসনের মধ্যে ৬৪ টি আসন অর্জনের পথে এগুচ্ছিল, যা ১৯৯৬ থেকে নিউজিল্যান্ডে আনুপাতিক ভোটদান পদ্ধতি গ্রহণের পর যে কোনও দলের জন্যই সর্বোচ্চ আসন লাভের ঘটনা।

এই মান্ডেটের অর্থ হচ্ছে এই যে ৪০ বছর বয়সী আর্ডার্ন এখন বিনা দ্বিধায় একক-দলীয় সরকার গঠন করতে পারবেন।

প্রধানমন্ত্রী আর্ডার্ন ক্রাইস্টচার্চ হামলাসহ করোনাভাইরাস মহামারীর মত বিভিন্ন সংকটে নেতৃত্বের জন্য বিশ্বজুড়েই আলোচিত হয়েছেন। উল্লেখ্য যে এর আগে নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড শহরে নতুন কোভিড সংক্রমণের ঘটনার পরে নির্বাচন একমাস পিছানো হয়েছিল।

উল্লেখ্য যে নারীর অধিকার এবং সামাজিক ন্যায়বিচারের মতো প্রগতিশীল বিষয় নিয়ে কাজ করার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত লাভ করলেও নিজ দেশে গত নির্বাচনে দেওয়া বৈপ্লবিক প্রতিশ্রুতি পূরণে ব্যর্থ হওয়ায় আর্ডার্ন সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন।

তাছাড়া বর্তমানে কোভিড পরবর্তী সময়ে ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক ধ্বসের মুখোমুখি হতে হবে আর্ডার্নের সরকার যেখানে তার সরকারের দেওয়া কঠোর লকডাউনের কারণে অর্থনৈতিক স্থবিরতা, আবাসন সঙ্কট এবং ধনী-দরিদ্রের মধ্যে বিভাজনের বেড়ে চলেছে।

নিউজিল্যান্ডে জনজীবন স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসলেও দেশের সীমানা এখনও বন্ধ রয়েছে যার কারণে পর্যটন খাতে ধ্বস সহ সামনে স্থায়ী মন্দার পূর্বাভাস দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা।

Comment As:

Comment (0)