No icon

গাড়িচালকের শত কোটি, সাবেক স্বাস্থ্য ডিজির কত

বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতকে গিলে খাওয়া সাবেক ডিজি আবুল কালাম আজাদের গাড়িচালক আব্দুল মালেক ওরফে মালেক ড্রাইভার র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছে।

মালিক ড্রাইভার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিবহন পুলের একজন ড্রাইভার এবং একজন তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ৮ম শ্রেণি। তিনি ১৯৮২ সালে সর্বপ্রথম সাভার স্বাস্থ্য প্রকল্পে ড্রাইভার হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ১৯৮৬ সালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিবহন পুলে ড্রাইভার হিসেবে চাকরি শুরু করেন।

প্রাথমিক তথ্যে জানা গেছে, এই সময়ের মধ্যেই গাড়িচালক মালেক তার স্ত্রীর নামে দক্ষিণ কামারপাড়ায় ২টি সাততলা বিলাসবহুল ভবন তৈরি করেছে। ধানমন্ডির হাতিরপুল এলাকায় ৪.৫ কাঠা জমিতে একটি ১০ তলা ভবন তৈরি করছে। দক্ষিণ কামারপাড়ায় ১৫ কাঠা জমিতে একটি ডেইরি ফার্ম আছে। এছাড়াও বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ অর্থ রয়েছে মালেকের।

জানা গেছে, স্বাস্থ্য অধিদফতরে ড্রাইভার্স অ্যাসোসিয়েশন নামে একটি সংগঠন তৈরি করে নিজে সেই সংগঠনের সভাপতি হয়েছেন। এই পদের ক্ষমতাবলে তিনি স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভারদের ওপর একছত্র আধিপত্য কায়েম করেছেন। ড্রাইভারদের নিয়োগ, বদলি ও পদোন্নতির নামে বিপুল পরিমাণ অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, ড্রাইভার মালেক তার মেয়ে নৌরিন সুলতানা বেলিকে অফিস সহকারী পদে, ভাই আব্দুল খালেককে অফিস সহায়ক পদে, ভাতিজা আব্দুল হাকিমকে অফিস সহায়ক পদে, বড় মেয়ে বেবির স্বামী রতনকে ক্যান্টিন ম্যানেজার হিসেবে, ভাগ্নে সোহেল শিকারীকে ড্রাইভার পদে, ভায়রা মাহবুবকে ড্রাইভার পদে, নিকট আত্মীয় কামাল পাশাকে অফিস সহায়ক পদে স্বাস্থ্য অধিদফতরে চাকরি দিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ড্রাইভার মালেকের ঘুষ-বাণিজ্য, দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যাবহার সম্পর্কে অবহিত ছিলেন সাবেক ডিজি আবুল কালাম আজাদ। এমনকি তার কাছে মালেকের বিরুদ্ধে অন্যান্য কর্মচারীরা অনেক অভিযোগও দিয়েছে। কিন্তু রহস্যজনক কারণে আবুল কালাম আজাদ তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেন নি।

ড্রাইভার মালেক আটক হওয়ার পর সর্বমহলেই একটি প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, একজন গাড়ি চালক যদি শত কোটি টাকার মালিক বনে যেতে পারেন, তাহলে যার গাড়ি চালাতেন সেই সাবেক ডিজি আবুল কালাম আজাদ কত হাজার কোটি টাকার মালিক?

সচেতন মানুষ বলছেন, সাবেক ডিজি আবুল কালাম আজাদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব হেফাজতে নেয়া দরকার। তাকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিলেই সব রহস্য বেরিয়ে আসবে।

Comment As:

Comment (0)