No icon

শাহবাগের দুটি সিজদাই আমার কাছে অধিক প্রিয়

ড. ফয়জুল হক

বাতিলের বিরুদ্ধে ইসলামপ্রিয় যে কোন দল বা সংগঠনের হুঙ্কার আমাদেরকে জাগ্রত করে। ব্যক্তিগতভাবে আমি সকল ইসলামপন্থী দল বা অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সব সময়। মতের ভিন্নতা থাকলেও যে যতো বেশি ইসলামপন্থীদের ব্যাপারে সহনশীল, আমি ততো বেশি তাদের প্রতি দুর্বল।

বর্তমান সময়ে বাতিলের বিরুদ্ধে হুঙ্কার দেওয়াটাই জরুরী; কিন্তু কে হুঙ্কার দিলো সেটা মুখ্য বিষয় নয়। ইসলামকে বিতাড়িত করতে সমগ্র পৃথিবীতেই নাস্তিক্যবাদী শক্তি আজ ঐক্যবদ্ধ। মুসলিমদের মধ্যে অনৈক্য বিস্তারেও রয়েছে তাদের অবদান। জাতীয় রাজনীতিতে ইসলামপ্রিয় মানুষ সম্পৃক্ত থাকুক সেটা যেমন নাস্তিক্যবাদীরা চায়না তেমনিভাবে আমরাও নিজেরা নিজেদেরকে একে অপরের এ কাজে উৎসাহ দেইনা। আর আমাদের এ দুর্বলতার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ইসলাম বিরোধীরা আমাদেরকে ক্ষতি ও দুর্বল করে দিচ্ছে। অথচ হওয়ার কথা ছিল ইসলামের এই সুন্দর জীবন বিধানকে কাজে লাগিয়ে, রাষ্ট্রের সকল পর্যায়েই মুসলমান ও ধর্মপ্রাণ মানুষরা নেতৃত্ব দিবে। দেশ পরিচালনা, আইন প্রণয়ন, বিচার বিভাগ পরিচালনা, মানুষের অধিকার সমুন্নত রাখা সহ সব জায়গায় ইসলামপ্রিয় ব্যক্তিদের পরিচালনায় সমাজ ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। কিন্তু আমাদের অনুপস্থিতি নাস্তিক্যবাদীদের জাগ্রত করে তুলেছে। আবার আমরা যখন ঐক্যবদ্ধ তখন আমাদের ঐক্যই বাতিলদের চিন্তা চেতনা ও দর্শনকে ছিন্ন বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

শাহবাগ ৯০% মুসলমানের বাংলাদেশে কখনোই ইসলাম বিরোধীদের আখড়া হতে পারেনা। আমাদের কাছে শাপলা চত্বরের প্রতিটি মাটি যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি শাহবাগের মাটিও। আমাদের অনৈক্যের সুযোগে এই মাটিতে নাস্তিক্যবাদিরা ২০১৩ সালে ইসলাম বিরোধী রঙ্গমঞ্চ তৈরি করেছিল এবং নিরীহ ইসলামপ্রিয় মানুষদের ফাঁসির রায়ের পথ প্রশস্ত করেছিল।

২০১৩ সালেই ইসলাম বিরোধী চক্রের বিরুদ্ধে তৎকালীন ছাত্রশিবির আন্দোলন করেছিলেন এবং শাহবাগেই আমার প্রিয় ভাইয়েরা নামাজের সিজদায় লুটে পড়েছিলেন। আর আজ ২০২০ সালে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন শাহবাগীদের মসনদে দাঁড়িয়ে ইসলাম বিরোধীদের ক্ষমতার দাপটের সামনে বুক পেতে অন্যায়ের বিরুদ্ধে সমাবেশ করছেন এবং আল্লাহর দরবারে সিজদা দিয়েছেন। এটা নাস্তিক্যবাদীদের জন্য চরম কুঠারাঘাত। নাস্তিক্যবাদীদের টার্গেট জামায়াত শিবির, চরমোনাই, কিংবা তাবলীগ নয়! নাস্তিক্যবাদীদের টার্গেট হলো ইসলাম।

রক্ত ও সময় দিয়ে যে রাজপথ তোমরা উর্বর করেছো তা এভাবেই ইসলামপন্থীদের দখলে থাকবে ইনশাআল্লাহ। আমার কাছে ইসলামপ্রিয় দুটি দলের নামাজের সিজদার দৃশ্য খুবই তাৎপর্যপূর্ণ ও সম্মানিত। এ সিজদা অব্যাহত থাকুক কিয়ামত পর্যন্ত এটাই আমার প্রত্যাশা। সিজদা শিবির কিংবা চরমোনাই অথবা তাবলীগ জামাত যেই দিক, আমি তাদেরকে ভালবাসবো আল্লাহর জন্য। এমন কাজের জন্য প্রাণভরা ভালবাসা ও শুভকামনা রইলো ইশা ছাত্র আন্দোলন ও শিবিরের প্রতি।

Comment As:

Comment (0)