No icon

নারায়ণগঞ্জে হেফাজতের মামলার আসামি বিএনপির মৃত নেতা

নারায়ণগঞ্জে হেফাজতের মামলার আসামি করা হয়েছে বিএনপির এক মৃত নেতাকে। ওই নেতার নাম আলী হোসেন প্রধান। তিনি নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন।

২০১৬ সালের ২৪ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ কারাগারে মারা যান আলী হোসেন প্রধান। ওই বছর ৩ নভেম্বর একটি রাজনৈতিক মামলার গ্রেফতার হন তিনি।

বিএনপির এ নেতা মারা যাওয়ার চার বছর পর সোমবার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার একটি নাশকতা মামলার ৭ নম্বর আসামি হয়েছেন তিনি।

হেফাজতের ডাকা হরতালে আলী হোসেনের বিরুদ্ধে নাশকতা মামলা দায়ের করেন থানার এস আই (নিরস্ত্র) কাজল চন্দ্র।

মৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে দায়ের করা নাশকতা মামলার খবর প্রকাশ হওয়ার পর নারায়ণগঞ্জে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তবে এ ব্যাপারে পুলিশের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

গত রোববার হেফাজতের ডাকা হরতালে ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগসহ নাশকতার অভিযোগে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে ৬টি মামলা হয় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায়। পুলিশ ৫টি আর র‍্যাব ১টি মামলা দায়ের করে এসব মামলার ১৩৬ জন এজাহার নামীয় আর অজ্ঞাত আসামি করা হয় ৩ হাজারের বেশি।

একটি মামলার আসামি করা হয় জালকুড়ি মাইজপাড়া এলাকার মৃত আলমাছ প্রধানের ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আলী হোসেন প্রধানকে। অথচ তিনি ২০১৬ সালের ২৪ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারে বন্দী থাকাবস্থায় মারা যান৷ মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর৷ যে বছর তিনি মারা যান সেই বছরেরই ৩ নভেম্বর নাশকতার অভিযোগে একটি মামলায় গ্রেফতার হন তিনি৷ পরে কারাগারে বন্দী অবস্থাতে তার মৃত্যু হয়৷

মহানগর যুবদলের সদ্য সাবেক সভাপতি মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ মঙ্গলবার রাতে নয়া দিগন্তে জানান, আলী হোসেন প্রধান গত চার বছর আগে রাজনৈতিক মামলায় নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারে আটক থাকা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তাছাড়া আমাদের আরেক যুবদল নেতা শহীদুল ইসলামও বর্তমানে রাজনৈতিক মামলায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি আছেন। তাকে মামলায় আসামি করা হয়েছে, যা তুঘলকি কাণ্ড ছাড়া আর কিছু না।

খোরশেদ আরো বলেন, হেফাজতের হরতালের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের কোনো সম্পর্ক ছিলো না। তারপরেও হেফাজতের নেতাকর্মীদের কারো নাম না দিয়ে শুধুমাত্র রাজনৈতিক হয়রানির উদ্দেশে বিএনপির সিনিয়র নেতা থেকে শুরু করে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান আহবায়ক কমিটির সদস্য রুহুল আমিন শিকদার মঙ্গলবার রাতে নয়া দিগন্তকে জানান, আলী হোসেন প্রধান একটি গায়েবি মিথ্যা মামলায় জেলে গিয়ে কারাগারেই তিনি মারা যান অথচ পুলিশ ওই মৃত মানুষের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা দায়ের করে প্রমাণ করেছে এসব মামলা মিথ্যা।

তিনি দাবি করেন, হেফাজতের সাথে বিএনপি জামায়াতের কোনো সম্পর্ক নেই আর তাণ্ডব চালানোর বিষয় অবান্তর। ঘটনার সাথে বিএনপি জামায়াতের কোনো নেতাকর্মী জড়িত নন।

রুহুল বলেন, নারায়ণগঞ্জে হেফাজত একটি প্রভাবশালী মহলের ঈশারায় পরিচালিত হয়। বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঠ ছাড়া করার জন্য সাজানো মামলা দেয়া হচ্ছে।

Comment As:

Comment (0)