No icon

বাংলাদেশে ভারতীয় টিকা অনিশ্চিত : রাশিয়া ও চীন থেকে আনার চেষ্টা

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের টিকা সরবরাহে অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় টিকা প্রয়োগের কার্যক্রম ঝুঁকিতে পড়েছে। ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের সাথে চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রতিমাসে ৫০ লাখ ডোজ করে টিকা আসার কথা থাকলেও গত দুই মাসে কোনো চালান আসেনি। কবে নাগাদ টিকার চালান আসতে পারে, তা কেউ বলতে পারছে না।

 

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, আগে থেকেই বিকল্প না রেখে একটি প্রতিষ্ঠানের ওপর নির্ভরশীল থাকার কারণে বাংলাদেশের টিকা পাওয়ার ক্ষেত্রে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। তবে স্বাস্থ্য অধিদফতর বলেছে, এখন রাশিয়া ও চীনসহ বিকল্প সব জায়গা থেকে টিকা আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

চুক্তির পর ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে গত জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে দু’টি চালানে ৭০ লাখ ডোজ টিকা বাংলাদেশ পেয়েছে। এ ছাড়া ভারত সরকার উপহার হিসেবে দিয়েছে ৩২ লাখ ডোজ। সবমিলিয়ে বাংলাদেশের হাতে এসেছিল এক কোটি দুই লাখ ডোজ। কিন্তু প্রথম ডোজের টিকা যে সংখ্যক মানুষ নিয়েছেন, তাদের দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার ক্ষেত্রে এখন প্রায় ১০ লাখ ডোজ টিকার ঘাটতি রয়েছে, যা সরকারি হিসাবেই পাওয়া যাচ্ছে।

এখন সিরাম ইনস্টিটিউট আবার কবে টিকা সরবারহ করবে, তার কোনো নিশ্চয়তা বাংলাদেশ পাচ্ছে না। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল বাসার মো: খুরশিদ আলম বলেছেন, এখন সিরামের সাথে যোগাযোগ রাখার পাশাপাশি বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে রাশিয়া ও চীন থেকে টিকা আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, টিকার ঘাটতি থাকছেই। হিসাব তাই বলে। আমরা বার বার বলছি, তাগাদা দিয়েছি। এর মধ্যে আমরা আমাদের অধিদফতর ও মন্ত্রণালয় দু-দু’বার তাকে (সিরাম) চিঠিও দিয়েছি। তারাও প্রত্যেকবার বলছে যে এটা অসুবিধ হবে না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল বাসার মো: খুরশিদ আলম আরো বলেছেন, আমরা যদি এখান থেকে না পাই তাহলে আমাদের অন্যত্র খুঁজতে হবে। আমরা তা শুরু করে দিয়েছি। রাশিয়া ও চীনের সাথে যোগাযোগ করেছি।

রাশিয়া ও চীন থেকে টিকা পাওয়ার নিশ্চয়তা পাওয়া গেছে কিনা- এই প্রশ্ন করা হলে অধ্যাপক খুরশিদ আলম বলেন, ‘এটা প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। তবে রাশিয়া ও চীন আগ্রহ প্রকাশ করেছে যে তারা দিতে চায়। ইতিমধ্যে আমাদের দুই-তিনটা বৈঠকও হয়েছে।

তবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক এও বলেছেন, মুশকিল হচ্ছে, কেউ না করছে না। টিকা দেবে না, একথা কেউ বলছে না। কিন্তু কবে পাওয়া যাবে, এমন নিশ্চয়তা পাওয়া যাচ্ছে না।

তিনি জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফাইজার ও মডার্নার টিকা আনার ব্যাপারেও যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু তারা এ মুহূর্তে তাদের দেশের বাইরে টিকা সরবরাহ করছে না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রথম ধাপে বাংলাদেশকে যে এক কোটি ডোজ টিকা দিতে চেয়েছিল, তাও অনিশ্চয়তায় পড়েছে।

 

মহাপরিচালক অধ্যাপক খুরশিদ আলম জানিয়েছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও ভারতের সিরামের কাছ থেকে টিকা নিয়ে বাংলাদেশকে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু সিরাম এ মুহূর্তে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকেও টিকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেছে।

এ দিকে ভারতের সিরামের সাথে বাংলাদেশ তিন কোটি ডোজ টিকা কেনার যে চুক্তি করেছিল ওই চুক্তি হয়েছিল বাংলাদেশের বেসরকারি কোম্পানি বেক্সিমোকোর মাধ্যমে। এখন এই অনিশ্চয়তা নিয়ে বেক্সিমকোর পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, এক জায়গার ওপর নির্ভর করার কারণে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। সরকার অবশ্য বলছে, বিকল্প বিভিন্ন দেশ থেকে টিকা আনার জোর চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের সাবেক পরিচালক ডা: বেনজীর আহমেদ বলেছেন, টিকা কার্যক্রম ঝুঁকিতে পড়লে সংক্রমণের বিস্তার প্রতিরোধে তার নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক নাসরিন সুলতানা বলেছেন, সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ যখন চলছে, তখন টিকা কার্যক্রম ব্যাহত হলে ঝুঁকি বাড়বে।

সিরাম থেকে এ পর্যন্ত অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা যতটা পাওয়া গেছে, ওই টিকাই প্রয়োগ করা হচ্ছে। কিন্তু এই টিকার প্রথম ডোজ যারা নিয়েছেন, তাদের কাউকে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া সম্ভব না হলে তার শরীরে টিকা কার্যকর হবে না। এটাকে বড় সমস্যা হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক বলেছেন, পুরো ডোজ না দিলে তো টিকা কাজ করবে না। এখনো যারা প্রথম ডোজ নিচ্ছেন, তাদের আট সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ দিতে হবে। একটা সময় পাওয়া যাবে। এই সময়ে টিকা ম্যানেজ করা সম্ভব হবে বলে আমরা মনে করি।

একই সাথে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেয়া নিশ্চিত করতে এই টিকার প্রথম ডোজ দেয়া বন্ধ করা হতে পারে। তিনি বলেছেন, নতুন টিকা এলে তখন আবার প্রথম ডোজ দেয়া যেতে পারে। এমনটা তারা ভাবছেন।

Comment As:

Comment (0)